চন্দ্রচূড় প্রতারক! হিন্দু মহাসভার সভাপতির আসল পরিচয় এলো প্রকাশ্যে!

আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে লড়ছে না হিন্দু মহাসভা। ভিডিও বার্তার মাধ্যমে এমনটাই জানালেন সুন্দর গিরি মহারাজ।

author-image
Shroddha Bhattacharyya
আপডেট করা হয়েছে
New Update
FHTUYIUOI

নিজস্ব সংবাদদাতা: লোকসভা ভোটের রণডঙ্কা বেজে গেছে। ইতিমধ্যেই প্রতিটি রাজনৈতিক শিবির নির্দিষ্ট কেন্দ্রে প্রার্থী দিয়েছে এবং প্রচারে নেমেছে। এই আবহেই জানা গিয়েছিল, আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে যাদবপুর কেন্দ্রে অখিল ভারত হিন্দু মহাসভার প্রার্থী হিসেবে লড়তে চলেছেন সংগঠনের রাজ্য সভাপতি ডক্টর চন্দ্রচূড় গোস্বামী। কিন্তু এই মুহূর্তে এক বিস্ফোরক অভিযোগ এলো প্রকাশ্যে। 

জানা যাচ্ছে লোকসভা ভোটে প্রতিদ্বন্দ্বিতাই করছে না হিন্দু মহাসভা। এই বিষয়টিকে একটি ভিডিও বার্তার মাধ্যমে প্রকাশ্যে এনেছেন, দীর্ঘদিন অখিল ভারত হিন্দু মহাসভার রাজ্য সভাপতির পদে আসীন থাকা স্বামী সুন্দর গিরি মহারাজ। অখিল ভারত হিন্দু মহাসভার রাজ্য সভাপতি হিসেবে প্রতারকদের মুখোশ খুলে দেওয়ার রাজনৈতিক ও সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকেই এই ভিডিও করেছেন স্বামী সুন্দর গিরি মহারাজ। একইসঙ্গে জানা গেছে, কিছুদিনের জন্য কার্যকরী সভাপতি থাকলেও চন্দ্রচূড় আদৌ সংগঠনের রাজ্য সভাপতি নন। 

 স্বামী সুন্দর গিরি মহারাজের ভিডিও বার্তায় উঠে এসেছে এমনই এক চাঞ্চল্যকর তথ্য। এই ভিডিও বার্তা থেকে জানা গেছে যে, যাদবপুর কেন্দ্র, শহর, রাজ্য তথা দেশের কোনও জায়গাতেই প্রার্থী দেয়নি হিন্দু মহাসভা। চন্দ্রচূড় গোস্বামীকে ঠকবাজ এবং প্রতারক বলে আক্রমণ করেন স্বামী সুন্দর গিরি মহারাজ। 

 তিনি নিজেই জানান, ২০২২ সালে কার্যকরী সভাপতি হিসেবে নিয়োগপত্র দেওয়া হয়েছিল চন্দ্রচূড়কে। কিন্তু, তার কিছুদিন পর স্বার্থসিদ্ধি এবং হিন্দু মহাসভার আদর্শ ও নীতি বিরোধী কাজ করায় চন্দ্রচূড়কে বরখাস্ত করা হয়েছিল। আরও জানা গেছে যে, অখিল ভারত হিন্দু মহাসভা কমিটি চন্দ্রচূড়কে চিরকালের জন্য নির্বাসিত করেছে। 

 হিন্দু মহাসভার রাজ্য সভাপতি অভিযোগ করেন যে এরপরেও মিথ্যে পরিচয় দিয়ে মানুষকে মিথ্যে বলছেন চন্দ্রচুড় গোস্বামী। এই পরিচয় দিয়ে বিগত দুর্গা পুজোর সময় টাকা তুলেছেন তিনি। আরও অভিযোগ সামনে এসেছে যে, হিন্দু মহাসভার প্রার্থী করা হবে বলেও তিনি টাকা তুলছেন। স্বামী সুন্দর গিরি মহারাজ স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন যে, গোটা ভারতেই অখিল ভারত হিন্দু মহাসভা ২০২৪-এর লোকসভা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছে না। 

 সাধারণ মানুষকে সতর্ক করে তিনি, প্রার্থী হওয়ার জন্য টাকা তুললে কিংবা প্রার্থীরা ভোটে লড়ার জন্য টাকা তুলতে এলে দলের সঙ্গে যোগাযোগ করার (ফোন নম্বর ৯৪৩২০৯৩৫৫৬) নির্দেশ দেন।  

 তিনি আরও জানান যে ইতিমধ্যে রাজ্যসমস্ত থানা, মুখ্য সচিব এবং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে এই বিষয়ে চিঠি দিয়ে অবগত করেছেন তারা।